ডিজিটাল মার্কেটিং কী? ডিজিটাল মার্কেটিং এর সম্পূর্ণ গাইডলাইন

ডিজিটাল মার্কেটিং নামটির সাথে আমরা সবাই প্রায় পরিচিত বা বিভিন্ন সোশাল মিডিয়ায় এই নামটি শুনেছি। ডিজিটাল মার্কেটিং বলতে অনেকেই ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দেখানোর মতোই কাজ ভেবে থাকেন। আসলেই কী তা ? এই লেখাটির মাধ্যমে আমরা এই সম্পর্কে সব ধরনের তথ্য জানব।

ডিজিটাল মার্কেটিং

ডিজিটাল মার্কেটিং কী ?

বর্তমান সময় হচ্ছে ইন্টারনেটের সময়। প্রায় সব কাজই ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা হয়। ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোন ব্র্যান্ড বা ব্যবসা বাড়ানোর মাধ্যম হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং। অল্প কথায়, ইন্টারনেটের বিভিন্ন মাধ্যম (সোশাল মিডিয়া, সার্চ ইঞ্জিন ইত্যাদি) ব্যবহার করে কোন সেবা বা পণ্যের প্রচার চালানো। তবে অনেকেই মনে করেন বিজ্ঞাপন দেখানোর কাজই মনে হয় ডিজিটাল মার্কেটিং। না! শুধু মাত্র অ্যাড বা বিজ্ঞাপন দেখানোর কাজই যে ডিজিটাল মার্কেটিং তা না। এর অনেকগুলো ধাপ রয়েছে। চলুন তাহলে জেনে নিই এর ধাপ সমূহ।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর ধাপ সমূহ

ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেকগুলো ধাপ রয়েছে যার ডিজিটাল মার্কেটিং করা হয়ে থাকে। আবার অনেকেই জানতে চান ডিজিটাল মার্কেটিং এ কি কি শেখানো হয়? যা যা শিখানো হয় বা  এর ধাপগুলো হলোঃ

  1. সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন
  2. সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং
  3. কন্টেন্ট মার্কেটিং
  4. সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং
  5. এফিলিয়েট মার্কেটিং
  6. ইমেইল মার্কেটিং
  7. ই-কমার্স প্রোডাক্ট মার্কেটিং
  8. সিপিএ মার্কেটিং

ডিজিটাল মার্কেটিং কেন প্রয়োজন ?

এর মাধ্যমে কম সময়ে বিশ্বব্যাপী পণ্য বা ব্যবসার প্রচার করা যায়। এছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন সুযোহ সুবিধা। তা নিচে বর্ণনা করা হলোঃ

বিশ্বব্যাপী প্রচার

কোন বিজ্ঞাপন যখন বিশ্বব্যাপী সবার কাছে টার্গেট করে দেওয়া হয় তখন বিশ্বের সব প্রান্তের ইন্টারনেট ব্যবহারকারী লোকজনদের কাছে পৌঁছে যায়। ফলে নিজ দেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে  অডিয়েন্স পাওয়া যায়।

খরচ সাশ্রয়

কম খরচের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ব্যবসার প্রচার করা যায় এই পদ্ধতির মাধ্যমে। নিউজ-পেপার বা টিভিতে বিজ্ঞাপন দিলে তা বিশ্বব্যাপী প্রচারও হয় না এবং অনেক সময় লাগে। খরচ সাশ্রয়ের জন্য এই পদ্ধতির বিকল্প নেই।

পারসোনালাইজেশন

ডিজিটাল মার্কেটিং ব্যবহার করে কাঙ্ক্ষিত গ্রাহকের কাছে অর্থাৎ আপনার ইচ্ছামতো গ্রাহকের কাছে বিজ্ঞাপন পৌঁছে দিতে পারবেন। ফলে আপনার অডিয়েন্সও বৃদ্ধি পাবে খুব সহজেই।

কাস্টমারের সাথে যোগাযোগ

ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেওয়া হলে কাস্টমারের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারবেন। কাস্টমার আপনার পণ্য বা ব্যবসা নিয়ে কী মন্তব্য করছে কিংবা সে এতার প্রতি আগ্রহী কী না? তা সম্পর্কে মুহূর্তের মধ্যেই জানতে পারবেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং করে আয়

ডিজিটাল মার্কেটিং করে আয় করার অনেক পদ্ধতি রয়েছে। আপনি চাইলে কোন মার্কেটপ্লেস ছাড়াও বাহির থেকে কাস্টমার পেতে পারবেন এই কাজের জন্য। এছাড়াও নির্বাচনী প্রচারনার জন্য অনেকেই এই পদ্ধতি ব্যবহার করে থাকেন। এর মাধ্যমেও আপনি তাকা আয় করতে পারবেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর ভবিষ্যৎ কি?

বর্তমান সময়ে ব্যবসার প্রচার ও পণ্য বিক্রির জন্য বেশিরভাগই ব্যবহার করা হচ্ছে এই পদ্ধতিটি। বিশ্বে প্রায় ৫  বিলিয়ন এরও বেশি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে। আপনি চাইলেই তাদের কাছে বিজ্ঞাপন পৌঁছে দিতে পারবেন। এমন মানুষ হয়তোবা কমই আছে যারা অনলাইনে পণ্য কিনে না। এই ধরনের অনলাইন ব্যবসার জন্য এই সেক্টর এর বিকল্প নেই। আপনি যদি ভবিষ্যতে আপনার ব্যবসার উন্নতি দেখতে চান তাহলে অবশ্যই ডিজিটাল মার্কেটিং এর প্রয়োজন রয়েছে।

সর্বশেষ

সবশেষে একটা কথাই বলা যায়, আপনি যদি একজন ফ্রিল্যান্সার হতে চান তাহলে ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ শিখতে পারেন বা আপনি যদি একজন ব্যবসায়ী হোন তাহলেও আপনাকে এর ব্যবহার করা উচিত।

প্রতিদিন নতুন আপডেট পেতে ভিজিট করুন আমাদের সাইট Bloggers BD 24

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *